1. doorbin24bd@gmail.com : admin2020 :
  2. reduanulhoque11@gmail.com : Reduanul Hoque : Reduanul Hoque
April 17, 2024, 10:40 pm
সংবাদ শিরোনাম :
ইরান-ইসরায়েল উত্তেজনা: যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর রাতে যে এক ঘণ্টা বন্ধ থাকবে ইন্টারনেট পরিষেবা ৭১ বছর পর সূর্যের কাছে আসছে এই ধূমকেতু, দেখা যাবে বাংলাদেশ থেকেও ডেঙ্গু প্রতিরোধে মাসে ৫০ হাজার করে পাচ্ছেন কাউন্সিলররা বিচারপতিদের সমান সুযোগ-সুবিধা পাবেন নির্বাচন কমিশনাররা ইতিহাসগড়া সেঞ্চুরিতে বাটলারের অনন্য নজির  ‘ইন্টারনেট পাওয়া যায় না ঢাকার সরকারি মেডিকেলগুলোতে’ বুয়েট শিক্ষার্থী সানির মৃত্যু : তদন্ত প্রতিবেদন ১২ মে হঠাৎ সালমানের বাড়িতে মুখ্যমন্ত্রী শিন্ডে, কী নিয়ে কথা হল? নারায়ণগঞ্জে ভবন থেকে পড়ে চীনা নাগরিকের মৃত্যু

প্রথমবার টি২০ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া

  • প্রকাশিত : রবিবার, নভেম্বর ১৪, ২০২১
  • 287 বার পঠিত

মোশাররফ হোসেন: আইসিসি বিশ্বকাপে একাধিকবার চ্যাম্পিয়ন হলেও টি২০বিশ্বকাপ জেতা হয়নি অস্ট্রেলিয়ার।
আজ দুবাইয়ের আধুনিক ক্রিকেট মাঠ শারজায় ৮উইকেটে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো টি২০ বিশ্বকাপ জিতে নিয়েছে অসটেরেলিযা।

অস্ট্রেলিয়ার মিশেল মার্শ অপরাজিত ৭৭ রান করার সুবাদে ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় ও ডেভিড ওয়ার্নার টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় হিসেবে পুরস্কার পেয়েছেন।

আইসিসি সভাপতি গ্রেগ বার্কলে খেলা শেষে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ফিনচের হাতে টি২০বিশ্বকাপ তুলে দেবার পর কাগজের রঙিন টুকরা বৃষ্টিতে নেচে গেযে আনন্দে মেতে ওঠেন ক্রিকেটাররা। একই সময় মাঠের গ্যালারির বাইরে থেকে আতশবাজির রঙিন উৎসবের মধ্য দিয়ে টুর্নামেন্টের ইতি টানা হয়।

টস জিতে ফাইনালের অভিজ্ঞ অস্ট্রেলিয়া ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। নিউজিল্যান্ড নির্ধারিত ২০ ওভারে সংগ্রহ করে ৪ উইকেটে ১৭২। দলের অধিনায়ক উইলিয়ামসন ৮৫, গুপতিল ২৮রান করেন। অস্ট্রেলিয়ার হাজেলউড ১৮ রানে ৩ উইকেট নেন। জামপা নেন ২৮ রানে ১ উইকেট।

অপরদিকে অস্ট্রেলিয়ার মিশেল মার্শ সাউদির বলে রিভার্স সুইপ শটে চার রান নিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন। অস্ট্রেলিয়ার ২ উইকেট হারিয়ে প্রয়োজনীয় ১৭৩ রান তোলে।
দলের অপর ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নার ৫৩, ম্যাক্সয়েল ২৮, ফিনচ ৫ রান করেন। নিউজিল্যান্ডের বোলার বোল্ট ১৮ রানে নেন ২ উইকেট।

নিউজিল্যান্ড প্রথমবারের মতো ফাইনাল খেলে লড়াকু ১৭২ রান তুললেও পেশাদার অসটেরেলিযার কাছে হার মেনে নিতে হযে ছে ।কৌশলী ও পরিকল্পিত ক্রিকেটের এক দারুণ ফাইনাল খেলা দেখল ক্রিকেট বিশ্ব ।

ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ পাঁচবার শিরোপার স্বাদ পেলেও টি-টোয়েন্টির শিরোপা এতদিন ছুঁয়ে দেখা হয়নি ফিঞ্চ-ওয়ার্নারদের। ২০১০ বিশ্বকাপে শিরোপার কাছাকাছি গিয়েও হতাশ হতে হয়েছিল ক্যাঙ্গারু বাহিনীকে। তবে এবার আর সেটা হয়নি। মরুর বুকে নতুন ইতিহাস লিখেছে টিম অস্ট্রেলিয়া। নিউজিল্যান্ডকে কাঁদিয়ে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা জিতল তারা।

দুবাইয়ে ফাইনাল মহারণের আগেই আলোচনা চলছিল ‘টস ভাগ্য’ নিয়ে। এবারের বিশ্বকাপের রাতের ম্যাচগুলোতে ভাগ্য অনেকটাই গড়ে দিয়েছিল টস।‘টস জিতে ফিল্ডিং, আর শেষ ইনিংসে ব্যাট করে ম্যাচ জয়’ চিত্রনাট্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এমনটাই যেন হয়ে আসছিল। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল যুদ্ধের ময়দান দুবাইয়ে হওয়া ৭৪টি টি-টোয়েন্টিতে আগে ব্যাট করা দল ৩৮ বার ম্যাচ জিতেছে।

শেষমেশ ফাইনালেও দেখা গেল একই চিত্র। রোববার (১৪ নভেম্বর) টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। শেষমেশ শিরোপা ধরা দিল অজিদের হাতে। অন্যদিকে, প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে আবারও আক্ষেপে পুড়ল নিউজিল্যান্ড।

এর আগে ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপেও ফাইনালে গিয়ে ইংলিশদের কাছে হারতে হয়েছিল কেন উইলিয়ামসনদের। বারবার কাছাকাছি গিয়েও শিরোপা অধরা থাকায় এরই মধ্যে ‘আন্ডারডগ’ তকমা মিলেছে কিউইদের। এবার কেন উইলিয়ামসনের লক্ষ্য ছিল সেই অপবাদ ঘুচানোর। কিন্তু দলের ব্যাটিং, বোলিং এবং ফিল্ডিং ব্যর্থতায় এ যাত্রায় সেটি আর হলো কোথায়!

রোববার (১৪ নভেম্বর) দু্বাইয়ে টস হেরে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান তোলে কিউইরা। যদিও এটিই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহের রেকর্ড। এর আগে ২০১৬ সালের ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬১ করেও শিরোপা জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু এবার আর সেটি হতে দেননি অজি ব্যাটসম্যানরা।

১৭৩ রানকে মামুলি টার্গেট বানিয়ে প্রথমে ওয়ার্নার আর পরে মিচেল মার্শের ব্যাটিং তাণ্ডবে বলতে গেলে দাপট দেখিয়েই শিরোপা জিতে নিল অস্ট্রেলিয়া।

পাকিস্তানের বিপক্ষে সেমিফাইনালে দারুণ খেলেছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। তার ৩০ বলে ৪৯ রানের ইনিংসে ভর করে পাক বোলারদের বিপক্ষে শুরুর ধাক্কা কাটিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। ফাইনালের মঞ্চে আবারও সেই বিধ্বংসী রূপে দেখা দিয়েছিলেন ওয়ার্নার। মারকাটারি ব্যাটিংয়ে চারটি চার ও ৩টি ছয়ে ভর করে ওয়ার্নার করেছেন ৩৮ বলে ৫৩ রান। তবে তারপরই ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। তবে কাজ যা করার তার আগেই করে ফেলেন। দলকে শিরোপার দ্বারপ্রান্তে এনে দিয়ে যান।

ওয়ার্নারের অসমাপ্ত কাজটা করেন মিচেল মার্শ। ম্যাচ শুরুর আগে শেন ওয়ার্ন বলেছিলেন অস্ট্রেলিয়া শিরোপা জিতবে এবং সর্বোচ্চ রান করবে মিচেল মার্শ। তার ভবিষ্যদ্বাণীই এদিন সত্যি হলো। অস্ট্রেলিয়াও শিরোপা পেল। আর মিচেল মার্শও সর্বোচ্চ ইনিংসটা খেললেন এদিন। হয়ত ক্যারিয়ার সেরাও। ৮ উইকেটের বিশাল জয়ের এ ম্যাচে তিনি অপরাজিত ছিলেন ৭৭ রানে। অন্যদিকে, তার সঙ্গে ক্রিজে সঙ্গ দিয়েছিলেন ২৮ রানে থাকা গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

এর আগে প্রথম ইনিংসে দলের বিপর্যয়ে হাল ধরেছিলেন কেন উইলিয়ামসন। তবে তার করা ৮৫ রানের অনবদ্য ইনিংসও শেষপর্যন্ত দলকে কাঙ্ক্ষিত শিরোপা এনে দিতে পারল না।

রোল অব অনার
বছর চ্যাম্পিয়ন রানার্স
২০০৭ ভারত পাকিস্তান
২০০৯ পাকিস্তান শিরিলংকা
২০১০ ইংল্যান্ড অসটেরেলিযা
২০১২ ওয়েস্টইন্ডিজ শিরিলংকা
২০১৪ শিরিলংকা ভারত
২০১৬ ওয়েসট ইন্ডিজ ইংল্যান্ড
* ২০১৭ ও ২০১৯ খেলা হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com
Theme Customized By Shakil IT Park