1. doorbin24bd@gmail.com : admin2020 :
  2. reduanulhoque11@gmail.com : Reduanul Hoque : Reduanul Hoque
February 26, 2024, 3:36 pm

মহান ব্যক্তিত্ব বঙ্গবন্ধুর সংক্ষিপ্ত জীবনী

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, মার্চ ১৭, ২০২৩
  • 72 বার পঠিত

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৩তম জন্মবার্ষিকী আগামীকাল দেশে এবং বিদেশে যথাযথ মর্যাদায় উৎযাপিত হবে।
বঙ্গবন্ধুর বিশাল ব্যক্তিত্বের সংক্ষিপ্ত জীবনী নিচে দেয়া হল:
সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ ফরিদপুর জেলার তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা শেখ লুৎফর রহমান গোপালগঞ্জের দেওয়ানী আদালতের ‘সেরেস্তাদার’ ছিলেন।
ছয় ভাই-বোনের মধ্যে তৃতীয় শেখ মুজিব স্থানীয় গিমাডাঙ্গা স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। চোখের রোগের কারণে তার প্রাথমিক শিক্ষা প্রায় চার বছর বিঘিœত হয়েছিল। বাংলাপিডিয়া অনুসারে, তিনি গোপালগঞ্জ মিশনারি স্কুল থেকে ১৯৪২ সালে ম্যাট্রিকুলেশন, কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ থেকে ১৯৪৪ সালে ইন্টারমিডিয়েট অফ আর্টস (আইএ) এবং একই কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে বিএ পাস করেন।
স্কুল জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বের গুণ প্রকাশ পেয়েছিল। গোপালগঞ্জ মিশনারি স্কুলের ছাত্র থাকাকালীন বাংলার তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী এ কে ফজলুল হক স্কুল পরিদর্শনে আসেন (১৯৩৮)। তরুণ মুজিব এই অঞ্চলের পরিস্থিতি সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রীকে অবহিত করার জন্য একটি বিক্ষোভের আয়োজন করেছিলেন।
ইসলামিয়া কলেজের ছাত্র থাকাকালে তিনি ১৯৪৬ সালে কলেজ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি বঙ্গীয় প্রাদেশিক মুসলিম লীগের একজন কর্মী এবং ১৯৪৩ সাল থেকে অল ইন্ডিয়া মুসলিম লীগ কাউন্সিলের সদস্য ছিলেন। রাজনীতিতে, তিনি ভারতীয় উপমহাদেশের কিংবদন্তি নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর একনিষ্ঠ অনুসারী ছিলেন এবং গণতন্ত্রকামী হিসাবে পরিচিত ছিলেন।
মুসলিম লীগ ১৯৪৬ সালের সাধারণ নির্বাচনের সময় শেখ মুজিবকে ফরিদপুর জেলায় দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার জন্য নিযুক্ত করেছিল। দেশভাগের পর (১৯৪৭), তিনি আইন অধ্যয়নের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন কিন্তু এটি সম্পূর্ণ করতে পারেননি। ১৯৪৯ সালের প্রথম দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের ন্যায্য দাবির প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার বিরুদ্ধে আন্দোলনে মদদ দেয়ার অভিযোগে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল।
পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ (১৯৪৮) গঠনের পেছনে প্রধান সংগঠক ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান।
প্রকৃতপক্ষে, তার সক্রিয় রাজনৈতিক জীবন শুরু হয় জেলে বন্দী থাকাকালীন সদ্য প্রতিষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের (১৯৪৯) যুগ্ম সম্পাদকের তিনটি পদের একটিতে নির্বাচন করার মাধ্যমে।
১৯৫৩ সালে, শেখ মুজিব পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন, এই পদে তিনি ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত অধিষ্ঠিত ছিলেন পরে তিনি দলের সভাপতি হন। মুজিবের উদ্যোগেই ১৯৫৫ সালে দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দেয়া হয় যাতে এটিকে ধর্মনিরপেক্ষ মনে হয়। এটা রাজনীতির প্রতি তার ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী মনোভাবের ইঙ্গিত দেয়। যা ১৯৪৭ সাল থেকেই তাঁর মধ্যে গড়ে উঠেছিল।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাজে পূর্ণ সময় দেয়ার জন্য শেখ মুজিব মাত্র ৯ মাস দায়িত্ব পালনের পর আতাউর রহমান খানের (১৯৫৬-৫৮) মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন।
জেনারেল আইয়ুুব খানের শাসনামলে, ১৯৬৪ সালে আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করার সাহস ছিল মুজিবের। তবে, তার রাজনৈতিক পরামর্শদাতা (গুরু), সোহরাওয়ার্দী পাকিস্তানে সাংবিধানিক শাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে নিষ্ক্রিয় রাখার এবং জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট নামে রাজনৈতিক জোটের অধীনে কাজ করার পক্ষে ছিলেন। এসবের মধ্যেই পাকিস্তানের ধারণা সম্পর্কে মুজিবের মোহভঙ্গ হয়েছিল।
পাকিস্তানের দ্বিতীয় গণপরিষদ-কাম-আইনসভার সদস্য (১৯৫৫-১৯৫৬) এবং পরে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য (১৯৫৬-১৯৫৮) হিসাবে তিনি যে ধারণা পেয়েছিলেন তা হলো পূর্ব পাকিস্তানের প্রতি পশ্চিম পাকিস্তানি নেতাদের মনোভাব সমতা এবং ভ্রাতৃত্বের নয়। ভাষা আন্দোলনের বন্দীদের মধ্যে শেখ মুজিব ছিলেন প্রথম (১১ মার্চ ১৯৪৮)।
১৯৫৫ সালের ২১ সেপ্টেম্বর পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলা ভাষার প্রশ্নে তাঁর ভাষণ উল্লেখযোগ্য। মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকার দাবি করে শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন: ‘আমরা এখানে বাংলায় কথা বলতে চাই, আমরা অন্য কোনো ভাষা জানি বা না জানি সেটা আমাদের জন্য সামান্যই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যদি মনে করি যে আমরা বাংলায় নিজেদের প্রকাশ করতে পারি আমরা সবসময় বাংলায় কথা বলব যদিও আমরা ইংরেজিতেও কথা বলতে পারি। যদি অনুমতি না দেওয়া হয়, আমরা হাউস ছেড়ে চলে যাব, কিন্তু বাঙালিকে এ হাউজে যেতে দেয়া উচিত; এটাই আমাদের অবস্থান।’
পূর্ব বাংলা থেকে পূর্ব পাকিস্তানে প্রদেশের নামকরণ পরিবর্তনের প্রতিবাদে শেখ মুজিব গণপরিষদে অন্য একটি ভাষণে (২৫ আগস্ট ১৯৫৫) যা বলেছিলেন তা সমানভাবে প্রাসঙ্গিক। স্যার, দেখবেন তারা ‘পূর্ব বাংলা’র পরিবর্তে ‘পূর্ব পাকিস্তান’ শব্দটি বসাতে চায়। আমরা বহুবার দাবি করেছি যে আপনি [পূর্ব] পাকিস্তানের পরিবর্তে [পূর্ব] বাংলা ব্যবহার করুন। বাংলা শব্দের একটা ইতিহাস আছে, একটা নিজস্ব ঐতিহ্য আছে।
শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০-এর দশকের গোড়ার দিকে রাজনৈতিক খ্যাতি অর্জন করেন। তাঁর ক্যারিসম্যাটিক সাংগঠনিক ক্ষমতার মাধ্যমে তিনি আওয়ামী লীগকে আন্তঃদলীয় রাজনীতি থেকে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হন।
একজন দৃঢ় সংগঠক, শেখ মুজিব দলের উপর তার পূর্ণ কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৬৬ সালে, তিনি তার বিখ্যাত ৬ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেন যাকে তিনি ‘আমাদের’ [বাঙালি] বেঁচে থাকার সনদ বলে অভিহিত করেছেন।
পয়েন্টগুলো হলো ১) একটি ফেডারেল প্রদেশ এবং সর্বজনীন প্রাপ্তবয়স্ক ভোটাধিকারের উপর ভিত্তি করে একটি সংসদীয় ধরণের সরকার প্রবর্তন; ২) প্রতিরক্ষা এবং পররাষ্ট্র বিষয়ক ব্যতীত সমস্ত বিভাগ ফেডারেটিং ইউনিট বা প্রাদেশিক সরকারের হাতে ন্যস্ত করা হবে; ৩) দুটি প্রদেশের জন্য পৃথক মুদ্রা বা পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে পুঁজির উড্ডয়ন বন্ধ করার কার্যকর ব্যবস্থা; ৪) প্রদেশে করের সমস্ত অধিকার হস্তান্তর; ৫) আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে প্রদেশের স্বাধীনতা এবং ৬) আত্মরক্ষার জন্য মিলিশিয়া বা আধা-সামরিক বাহিনী গঠনের জন্য প্রদেশগুলোর অধিকার।
সংক্ষেপে, কর্মসূচিটি রাজনৈতিক জীবনে একটি নতুন দৃষ্টিভঙ্গির তুলে ধরেছিল। অক্ষরে অক্ষরে ৬ দফা কর্মসূচির অর্থ ছিল পূর্ব পাকিস্তানের জন্য ছায়া স্বাধীনতা। যদিও সমস্ত রাজনৈতিক দলের রক্ষণশীল অংশগুলো এটিকে উদ্বেগের দৃষ্টিতে দেখেছিল, তবে এটি তরুণ প্রজন্ম, বিশেষত ছাত্র, যুবক এবং শ্রমজীবী শ্রেণির কল্পনাকে জাগিয়ে তুলেছিল।
মুজিবের চ্যালেঞ্জিং ৬ দফা কর্মসূচি উপস্থাপনের পর আইয়ুব সরকার তাকে কারাগারে বন্দী করে।
আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা নামে পরিচিত একটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা সরকারীভাবে রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর সঙ্গে আরও ৩৪ জনের বিরুদ্ধে আনা হয়েছিল। তাদের অধিকাংশই ছিল পাকিস্তান বিমান ও নৌবাহিনীর বাঙালি অফিসার ও সার্ভিসম্যান। তাদের মধ্যে তিনজন প্রবীণ বাঙালি সরকারি কর্মচারীও ছিলেন। মুজিব আগে থেকেই কারাগারে থাকায় তাকে এক নম্বর আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখানো হয়। তার বিরুদ্ধে অন্যান্য সহ-অভিযুক্তদের সঙ্গে পাকিস্তান রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার অভিযোগ আনা হয়েছিল।
অভিযোগ ছিল, শেখ মুজিবুর রহমান এবং অন্যান্য অভিযুক্তরা গোপনে ভারতের সহায়তায় পূর্ব পাকিস্তানকে আলাদা করার পরিকল্পনা করছিলেন। পাল্টা আক্রমণাত্মক পদক্ষেপ অবশ্য পাল্টা ফলদায়ক বলে প্রমাণিত হয়েছে। ঢাকা কুর্মিটোলা সেনানিবাসের একটি বিশেষ ট্রাইব্যুনালে মামলার বিচার পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তানি আধিপত্যবাদী মনোভাবের বিরুদ্ধে বাঙালির আবেগকে আলোড়িত করে।
আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার বিচার চলাকালে মুজিবের ক্যারিশমা আরও বেড়ে যায় এবং প্রায় পুরো জাতি তাদের নেতার বিচারের প্রতিবাদে রুখে দাঁড়ায়। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের দ্বারা সংগঠিত গণআন্দোলন ১৯৬৯ সালের প্রথম দিকে এমন গতিতে পৌঁছেছিল যে আইয়ুুব সরকার মামলাটি প্রত্যাহার করে দেশে আসন্ন গৃহযুদ্ধ এড়াতে চেষ্টা করেছিল। শেখ মুজিব ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি নিঃশর্ত মুক্তি পান।
মুক্তির পরের দিন, সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ শেখ মুজিবকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে সরকারকে বাধ্য করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে কার্যকর রাজনৈতিক ও সামাজিক শক্তি হিসাবে প্রমাণিত হয়েছিল। তারা রমনা রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য গণসংবর্ধনার আয়োজন করে।
সংগ্রাম পরিষদের পক্ষ থেকে সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ (বাঙালির বন্ধু) উপাধিতে ভূষিত করেন। তাঁর মধ্যে, তারা এক ধরণের ত্যাগী নেতাকে দেখেছিলেন যিনি পাকিস্তানের ২৩ বছরের শাসনামলে প্রায় বারো বছর জেল খেটেছিলেন। বারো বছর জেল এবং দশ বছর নিবিড় নজরদারিতে থাকার পর শেখ মুজিবের কাছে পাকিস্তান থেকে মুক্ত স্বদেশের  জন্য আক্ঙ্খা ছিল অনেক বেশি তীব্র।
১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তানের প্রথম সাধারণ নির্বাচন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পূর্ব পাকিস্তানের একমাত্র মুখপাত্র করে তোলে। তাঁর নেতৃত্বে, আওয়ামী লীগ পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে পূর্ব পাকিস্তানে ১৬৯টি আসনের মধ্যে ১৬৭টি (৭টি মহিলা সংরক্ষিত আসনসহ) জয়লাভ করে। জনগণ তাকে তার ৬ দফা পক্ষে নিরঙ্কুশ ম্যান্ডেট দিয়েছে। এবার তার বাস্তবায়নের পালা।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৩ জানুয়ারি রমনা রেসকোর্সে পূর্ব পাকিস্তানের সকল প্রতিনিধিদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে পাকিস্তানের সংবিধান প্রণয়নের সময় ৬ দফা থেকে বিচ্যুত না হওয়ার শপথ নেন।
এই পরিস্থিতিতে জেনারেল ইয়াহিয়ার সামরিক জান্তা এবং পশ্চিম পাকিস্তানের নির্বাচিত নেতা জেড এ ভুট্টো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কেন্দ্রে সরকার গঠন করতে না দেয়ার ষড়যন্ত্র করেন। ১৯৭১ সালের ১ মার্চ রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান ৩ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ঢাকা জাতীয় পরিষদের বৈঠক একতরফাভাবে স্থগিত করেন। এই ঘোষণা পূর্ব পাকিস্তানে সাধারণ আন্দোলনের সূত্রপাত করে। জবাবে বঙ্গবন্ধু পূর্ব পাকিস্তানে সর্বাত্মক অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন।
পুরো প্রদেশ তাকে সমর্থন করেছে। অসহযোগের সময় (২-২৫ মার্চ ১৯৭১), পূর্ব পাকিস্তানের সমগ্র বেসামরিক প্রশাসন তাঁর নিয়ন্ত্রণে চলে আসে এবং তার নির্দেশ অনুসারে চলে।
তিনি প্রকৃতপক্ষে প্রদেশের সরকার প্রধান হয়েছিলেন। ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ডের কথায় (লন্ডনের একটি দৈনিক) শেখ মুজিবুর রহমানকে এখন জনগণের পূর্ণ সমর্থনে পূর্ব পাকিস্তানের বস মনে হচ্ছে। ধানমন্ডিতে রহমানের বাড়িটি আমলা, রাজনীতিবিদ, ব্যাংকার, শিল্পপতি এবং সর্বস্তরের মানুষের আগমনে ব্যস্ত হয়ে পড়ে (১২ মার্চ ১৯৭১)।
এ সময় ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে লক্ষাধিক মানুষের বিশাল সমাবেশে মুজিব ঐতিহাসিক ভাষণ দেন যা বাঙালি জাতির ইতিহাসের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।
মুজিব তাঁর ভাষণে সামরিক আইন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তোলেন- যা নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে ব্যর্থ হয়। বক্তৃতার শেষে তিনি ঘোষণা করেন: ‘প্রতিটি বসতবাড়িতে দুর্গ গড়ে তুলুন। আপনার হাতে যা আছে তাই দিয়ে পাকিস্তানি শত্রুকে প্রতিহত করতে হবে। মনে রাখবেন, আমরা অনেক রক্ত দিয়েছি, প্রয়োজনে আরও অনেক রক্ত দেব, তবে আমরা এদেশের মানুষকে মুক্ত করব, ইনশাআল্লাহ’। … এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম; এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’
ইতোমধ্যে, রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান এবং পশ্চিম পাকিস্তানের অন্যান্য নেতারা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর দলের সঙ্গে সংলাপ শুরু করতে ১৫ মার্চ ঢাকায় আসেন।
পরের দিন সংলাপ শুরু হয় এবং ২৫ মার্চ সকাল পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলতে থাকে।
এই সময়কালে পূর্ব পাকিস্তানে অবিরাম অসহযোগ ও হরতাল চলতে থাকে।
২৬ শে মার্চ থেকে ছাত্র ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে আসছে এবং তা অব্যাহত রয়েছে। এরই  প্রেক্ষাপটে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় বর্বর দমন অভিযান শুরু করে অপারেশন সার্চলাইটের নামে ছাত্র, শিক্ষক ও নিরীহ মানুষ হত্যা করে। এভাবে নয় মাসব্যাপী গণহত্যা চালিয়েছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী।
২৫ মার্চ রাতে শেখ মুজিবকে গ্রেফতার করা হয় এবং ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ ও বিদ্রোহ উসকে দেওয়ার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হওয়ার জন্য পশ্চিম পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া পর্যন্ত ঢাকা সেনানিবাসে বন্দী করে রাখা হয়।
গ্রেফতারের আগে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করে সম্প্রচারের জন্য সাবেক ইপিআর ট্রান্সমিটারের মাধ্যমে চট্টগ্রামে একটি ওয়্যারলেস বার্তা প্রেরণ করেছিলেন।
তাঁর ঘোষণার উদ্ধৃতি: ‘এটাই হয়তো আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। আমি বাংলাদেশের জনগণকে আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা যেখানেই থাকুন না কেন, আপনাদের যা কিছু আছে, শেষ পর্যন্ত দখলদার সেনাবাহিনীকে প্রতিহত করার জন্য।
বাংলাদেশের মাটি থেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর শেষ সৈনিককে বিতাড়িত করে চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত তোমাদের লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।’
মুক্তিযুদ্ধের সময় ২৫ মার্চ সেনাবাহিনীর ক্র্যাকডাউনের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের হাতে বন্দী ছিলেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে তাকে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল গঠিত মুজিবনগর সরকার নামক অস্থায়ী সরকারের রাষ্ট্রপতি করা হয়।
তাকে সশস্ত্র বাহিনীর সর্বোচ্চ কমান্ডারও করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়কালে শেখ মুজিবের ক্যারিশমা মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণা এবং জাতীয় ঐক্য ও শক্তির উৎস হিসেবে কাজ করে।
বঙ্গবন্ধুর বিচারে পাকিস্তানি জান্তা তাকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছিল, বিশ্বনেতারা তার জীবন বাঁচাতে অনুপ্রাণিত হয়েছিল।
১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি দখলদারিত্ব থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন এবং লন্ডন হয়ে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি সারা দেশে আনন্দ-উল্লাসের মধ্য দিয়ে বিজয়ী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন।
তেজগাঁও পুরাতন বিমানবন্দরে সর্বস্তরের লাখো মানুষ তাকে বীরত্বপূর্ণ স্বাগত জানান।
তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে, বাংলাদেশের ভবিষ্যতের ব্যাপারে নতুন প্রজাতন্ত্রের নেতৃত্বদানের বিষয়ে সব অনিশ্চয়তা দূর হয়ে যায়। ডেইলি দ্য গার্ডিয়ান (লন্ডন থেকে প্রকাশিত) ১০ জানুয়ারি ১৯৭২ তারিখে একটি সম্পাদকীয়তে লিখেছিল: ‘শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকা বিমানবন্দরে পা রাখার ফলে নতুন প্রজাতন্ত্র একটি দৃঢ় সত্যে পরিণত হয়।’
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাড়ে তিন বছরের স্বল্প সময়ের জন্য স্বাধীনতা-পরবর্তী বাংলাদেশের প্রথম সরকারের নেতৃত্ব দেন। তাঁর সরকারকে গোড়া থেকে শুরু করে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অগণিত সমস্যা মোকাবেলা করতে হয়েছে।
বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশে রাষ্ট্র-গঠন, জাতি-গঠনসহ সব গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে কাজ শুরু হয়।
আইনশৃঙ্খলা পুনরুদ্ধার, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসন, যোগাযোগ ব্যবস্থা পুনর্গঠন, মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী লোকদেরকে জনরোষ থেকে বাঁচানো এবং সবচেয়ে বড় কথা, লাখ লাখ ক্ষুধার্তকে খাওয়ানো এবং আরও অনেক কিছু ছিল তাঁর সরকারের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ।
এতসব সমস্যার মধ্যেও শেখ মুজিব কখনোই সংবিধান প্রণয়ন করতে পিছপা হননি, যা তিনি দশ মাসের মধ্যে করেছিলেন।
স্বাধীনতার তিন মাসের মধ্যে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করা হয়। পনের মাসের মধ্যে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় (৭ মার্চ ১৯৭৩)। ১৪০টি দেশ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল।
বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির পথপ্রদর্শক নীতি তুলে ধরেন: ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারো সঙ্গে বৈরীতা নয়’।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিপথগামী একদল সেনা তাকে পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ হত্যা করে, যা দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে কালো অধ্যায়।
২০১৭ সালের অক্টোবরে জাতিসংঘের শিক্ষা, বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা (ইউনেস্কো) বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণকে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

সূত্র: বাসস

সংবাদটি শেয়ার করুন :
এ জাতীয় আরও খবর

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯  
© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com
Theme Customized By Shakil IT Park